ওয়াইনে আটকে জীবন, দুটো মহামারি দেখে গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম তুলে জানালেন ফরাসি নান আন্দ্রে

ওয়াইনে আটকে জীবন, দুটো মহামারি দেখে গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে নাম তুলে জানালেন ফরাসি নান আন্দ্রে

সিস্টার আন্দ্রে তাঁর জীবনে প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ দেখেছেন। তিনি ১৯১৮ সালে স্প্যানিশ ফ্লু ও ২০২০ সালে কোভিড মহামারির সাক্ষী। এই চারটি ভয়ঙ্কর বিপর্যয় দেখেছেন আন্দ্রে।

একজন ফরাসি সন্নাস্যী সিস্টার আন্দ্রে। সোমবারই তিনি বিশ্বের সবথেকে বয়স্কো ব্যক্তির খেতাব পেয়েছেন। নাম তুলেছেন গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে। বর্তমানে তাঁর বয়স ১১৮ বছর ৭৩ দিন। বিশ্ব রেকর্ড করেই তিনি জানিয়েছেন তাঁর এই লম্বার জীবনের গোপন রহস্য। এই সুস্থ আর দীর্ঘ জীবনের চাবি কাঠি রয়েছে এক গ্লাস ওয়াইন আর চকোলেটের মধ্যে।

আগের বছরই সিস্টার আন্দ্রে জিতে নিয়েছিলেন ইউরোপের সবথেকে বয়স্ক ব্যক্তির খেতাব। জাপানি মহিলা কেন তানাকার মৃত্যুর পর তিনি বর্তমানে বিশ্বের সবথেকে বয়স্ক নাগরিকের সম্মান লাভ করেছেন। গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড তাদের নিজস্ব ওয়েব সাইটে জানিয়েছে ১৯৯৪ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি লুসিল ব়্যান্ডনে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। প্রথম জীবনে গভর্নেস হিসেবে শিশুদের দেখাশোনা করেন। ১৯৪৪ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় থেকেই সংসার ত্যাগ করে সন্ন্যাসীর জীবন কাটাতে শুরু করেন। 
 

সিস্টার আন্দ্রে তাঁর জীবনে প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ দেখেছেন। তিনি ১৯১৮ সালে স্প্যানিশ ফ্লু ও ২০২০ সালে কোভিড মহামারির সাক্ষী। এই চারটি ভয়ঙ্কর বিপর্যয় দেখেছেন আন্দ্রে। তিনি তাঁর ঘনিষ্টদেরই জানিয়েছেন, এই সম্মান পেয়ে তিনি আজ খুশি। 

গত বছর ১২ ধরে সিস্টার আন্দ্রে টুলনের একটি নার্সিংহোমে বাস করছেন। গতবছর মহামারির যখন ভয়ঙ্কর আকার নিয়েছিল তখনও তিনি এখানেই ছিলেন। তবে তাঁর এই লম্বা জীবনের গোপন রহস্যের কথা তিনি অকপটে জানিয়েছেন। আন্দ্রে জানিয়েছেন ওয়াইয়েনর প্রতি তাঁর বিশেষ অনুরাগের কথা। একই সঙ্গে তিনি বলেছেন এখনও চকোলেট প্রীতি তাঁর যায়নি। 

এখনও পর্যন্ত বিশ্বের সবথেকে বয়স্ক ব্যক্তির রেকর্ড রয়েছে ফরাসি মহিলা জিন লুইস ক্যালমেন্টের নামে।  তিনি ১২২ বছর ১৬৪দিন বেঁচে ছিলেন। সিস্টার আন্দ্রে তার থেকেও বেশি দিন বাঁচতে পারেন। তিনি এই রেকর্ড ভেঙে দিতে পারবেন বলেও আশাবাদী।  ততাঁর ঘনিষ্ট ডেভিড তাভেলা জানিয়েছেন আরও বেশি দিন সিস্টার আন্দ্রে পৃথিবীতে থাকতে চান। 

তবে এই রেকর্ড করার পরই সিস্টার আন্দ্রেকে চিঠি লিখে অভিনন্দন জানিয়েছেন পোপ ফ্রান্সিস, ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়ের ম্যাক্রোঁ। টুলনের মেয়র হুবার্ট ফ্য়ালকো । অনেকেই বলেছেন তাঁর এই দীর্ঘ সুস্থ জীবনে  সকলের কাছেই একটি আদর্শ। সূত্রের খবর বার্ধক্য এখনও পুরোপুরি গ্রাস করেনি আন্দ্রেকে। এখনও তিনি নিজের কাজ নিজেই করে নিতে পারেন। স্মৃতি শক্তিও রীতি মত সক্রিয় রয়েছে তাঁর। এই রেকর্ডও তিনি উপভোগ করছেন।